Sunday, October 24, 2010

ত্রিভুজ প্রেমের জের ধরে বাকৃবিতে ছাত্রী পেটানোর দায়ে প্রেমিক গ্রেপ্তার

1 comments
ত্রিভুজ প্রেমের জের ধরে গত শুক্রবার ময়মনসিংহে অবস্থিত বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) এক ছাত্রীকে পিটিয়ে আহত করেছেন এক প্রেমিক। এ ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় মামলা হলে পুলিশ অভিযুক্ত প্রেমিককে বিশ্ববিদ্যালয়ের ঈশা খাঁ হল থেকে গ্রেপ্তার করে।

সূত্র জানায়, শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদের লেভেল-১, সেমিস্টার-২ এর তমা, তৃষ্ণা সাহা, কামরুন নাহার কান্তা, রিপন শেখ, শিপন, সাজ্জাদ একত্রে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে ব্রহ্মপুত্র নদের নিঝুম দ্বীপ চরে যায়।

এ সময় তমা তার নতুন প্রেমিক রিপন শেখের সঙ্গে প্রেমলীলায় মত্ত হয়ে ওঠে। এ খবর পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুড টেকনোলজির লেভেল-৩, সিমেস্টার-২ এর ছাত্র ও তমার পুরোনো প্রেমিক তনয় ও তার বন্ধু আরাফাত, ফরহাদ, ছাব্বির ও ঈশান নিঝুম দ্বীপ চরে যায়। এ সময় তমা ও তার নতুন প্রেমিক রিপনের সঙ্গে তাদের প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে তনয়ের কথা কাটাকাটি হয়।

একপর্যায়ে তনয় ও তার বন্ধুরা মিলে তমাকে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেন। বাধা দিতে গিয়ে এ সময় প্রহারের শিকার হন তমার নতুন প্রেমিক রিপন। পরে আহত তমাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের হেলথ কেয়ার সেন্টারে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তারের পরামর্শে শুক্রবার সন্ধ্যায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২০নং ওয়ার্ডে স্থানান্তর করা হয়।

এদিকে মেয়ের আহত হওয়ার খবর পেয়ে তমার মা-বাবা শুক্রবার সন্ধ্যায় জামালপুর থেকে ময়মনসিংহে আসেন এবং তারা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতনের ধারায় ৫ জনকে আসামি করে ময়মনসিংহ কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলা দায়েরের পর শুক্রবার রাত ১০টার দিকে ঈশা খাঁ হল থেকে অভিযুক্ত প্রধান আসামি তনয়কে গ্রেপ্তার করে কোতোয়ালি থানা পুলিশ। বিশ্ববিদ্যালয়ের তাপসী রাবেয়া হলের আবাসিক ছাত্রী তমার গ্রামের বাড়ি জামালপুর। আর তনয়ের বাড়ি বরিশাল।

এ বিষয়ে কোতোয়ালি থানার ওসি গোলাম সারোয়ার বলেন, তনয়কে প্রধান আসামি হিসেবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের সময় তনয়ের মোবাইলের ইনবক্সে তমার প্রেরিত প্রেমের প্রমাণস্বরূপ কয়েকটি এসএমএস পাওয়া গেছে। তবে তা সত্য কিনা তা যাচাই-বাছাই চলছে।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোক্টর অধ্যাপক ড. মোঃ আবু হাদী নূর আলী খান জানান, তনয়কে গ্রেপ্তারের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কোনো হাত নেই। ঘটনা ক্যাম্পাসের বাইরের। এর তদন্তসহ বিচারের দায়ভার পুলিশ প্রশাসনের।

Source: Bhorer Kagoj

1 comments:

  • October 25, 2010 at 5:53 AM
    sumon :

    টাঙ্গাইল এবং জামালপুরের মেয়েরা কি এমনই হয়?...(জাবি অভিজ্ঞতা থেকে প্রশ্ল করলাম)...........( নিঝুম দ্বীপের চর? ) বাবা আবার মামলাও করেছেন!!!!
    তবে ছেলেটাও বেশি করে ফেলেছে।

Post a Comment