Friday, December 3, 2010

সার্চ ইঞ্জিন আবিষ্কারের ইতিকথা

1 comments
যে কোনো তথ্য অনুসন্ধানে সার্চ ইঞ্জিন খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। মুহূর্তেই কাক্সিক্ষত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায় সার্চ ইঞ্জিনের বদৌলতে। কিন্তু কিভাবে এলো এই সার্চ ইঞ্জিন।

সার্চ ইঞ্জিন হচ্ছে একটি ওয়েবসাইট যার মূল বৈশিষ্ট্য হচ্ছে_ তথ্য অনুসন্ধানের সুবিধা। অর্থাৎ এ ধরনের ওয়েবসাইট নিমেষেই তথ্য অনুসন্ধানের অনুমতি দেয়। এক তথ্যে জানা যায়, ১৯৮৬ সালে হিউলেট প্যাকার্ড বা সংক্ষেপে এইচপি প্রতিষ্ঠান সর্বপ্রথম সার্চ ইঞ্জিন আবিষ্কার করে। তবে এককভাবে কেউ সার্চ ইঞ্জিন আবিষ্কারের দাবিদার নয়। এতে অনেক প্রতিষ্ঠানের অবদান রয়েছে। ১৯৯০ সালে ম্যাকগিল ইউনিভার্সিটি থেকে সার্চ ইঞ্জিন উন্নয়নে কার্যক্রম শুরু হয়। লাইকস নামক সার্চ ইঞ্জিন আবিষ্কৃত হয় ১৯৯৩ সালে। এটি ছিল একটি ইউনিভার্সিটি প্রজেক্ট। ১৯৯৪ সালে প্রথম পূর্ণ টেক্সট ওয়েব সার্চ ইঞ্জিনের নাম ওয়েবক্রলার। জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন ইয়াহু প্রতিষ্ঠিত হয় একই বছর। এর পরের বছর ১৯৯৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় সার্চ ইঞ্জিন আলতাভিস্তা। বর্তমানে ব্যাপক জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন গুগল প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৯৮ সালে। আজ বিশ্বে তথ্য ও প্রযুক্তি অনেক এগিয়েছে। সেই হিসেবে সার্চ ইঞ্জিনে ব্যাপক পরিবর্তনও এসেছে।

-আমিন রহমান নবাব

1 comments:

  • May 9, 2011 at 6:58 AM

    দক্ষিন আমেরিকার এই মাছটি পৃথিবীতে মিঠাপানির মাছের মধ্যে সর্বোবৃহত।ব্রাজিলে একে বলে পিরারুকু ও পেরুতে এটি পাইছে নামে পরিচিত।এদের মধ্যে কোন কোনটির আকার ১০ফুটের বেশি হয় এবং ওজন হয় ২০০কেজির মতো।অবাধে মাছ ধরা এদেরকে হুমকিতে ফেলেছে বিধায় ব্রাজিল ও দঃআমেরিকায় অনেক জায়গায় একে সংরক্ষিত মর্যাদা দেয়া হয়েছে।ফুসফুস থাকাতে এদেরকে বাতাস হতে শ্বাস নিতে হয়,ফলে তারা সহজে শিকার হয়ে যায়।এরা আমাজন বেসিন ও ততসংলগ্ন হ্রদ জলাভুমিতে ঘুরে বেড়ায়।এদের আছে প্রশস্ত দেহ,মোটা আশঁ যুক্ত আবরন এবং ক্রমশ দেহ থেকে সরু মাথা।

Post a Comment