Monday, March 14, 2011

মসলা ঘরোয়া দাওয়াই

1 comments
দাঁতের ব্যথায় কাবু? হজমের গোলমাল? নাকি চুল উঠে মাথায় টাক পড়ে যাচ্ছে? যে কোনো সমস্যার সমাধানের চিরচেনা মসলাপাতি রাখুন হাতের কাছে।

এলাচ : এলাচে ১০% ভোলাটাইল অয়েল রয়েছে। এছাড়াও এলাচ থেকে প্রোটিন, ভিটামিন এবং কিছু পরিমাণ ফ্যাটও পাওয়া যায়।

খাদ্যগুণ : এলাচে ফ্যাটের পরিমাণ খুবই কম। * প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন রয়েছে। * ভিটামিন- এ, বি এবং সি পাওয়া যায়।

উপকারিতা : এলাচ ক্ষুধা বাড়াতে সাহায্য করে।

* অম্বল, বুকজ্বালা কমায় এবং হজমে সাহায্য করে।

* কারমিনেটিভ প্রপার্টি থাকায় পেটফাঁপা কমায়।

* শ্বাসকষ্ট এবং হৃদরোগ কমায়।

* কাশিতে উপকারী।

অপকারিতা : ফোড়ার ধাত থাকলে এলাচ ব্যবহার না করাই ভালো।

দারুচিনি : দারুচিনিতে অল্প পরিমাণ প্রোটিন, প্রচুর মিনারেল এবং কিছু পরিমাণ ভিটামিনও পাওয়া যায়।

খাদ্যগুণ : দারুচিনি নিউট্রেশন প্রপার্টির জন্য ব্লাড সুগার কমায়। * দারুচিনির এসেনশিয়াল অয়েল অ্যান্টি মাইক্রোবায়াল। ফলে দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

উপকারিতা : আর্থ্রাইটিসের জন্য দারুচিনি খুবই উপকারি।

* ব্লাডার ইনফেকশন কমায়। * রক্তে কোলেস্টেরল ২ ঘণ্টার মধ্যে ১০% কমায়। * দারুচিনির গুঁড়ো মাড়িতে লাগালে মেয়েদের প্রজনন ক্ষমতা বাড়ে। এই গুঁড়ো ইউটেরাসকে শক্ত করতে সাহায্য করে।

* ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাল অ্যাটাক আটকে দেহের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

* খাওয়ার আগে দারুচিনি খেলে পেট ঠিক থাকে।

* রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রাখে।

জোয়ানের উপকারিতা : অ্যাজমা কমায়।

* ব্রঙ্কাইটিস সারায়। * হজমে সাহায্য করে। * গলা ব্যথা, সর্দি-কাশি কমায়। * আর্থ্রাইটিস কমায়।

* মাইগ্রেন সারাতে সাহায্য করে। * কানে ব্যথা কমায়।

লবঙ্গের উপকারিতা : দাঁতের যন্ত্রণায় উপকারী। * কাশি কমায়। * পেট ব্যথা কমায়। * পায়রিয়ার ক্ষেত্রে উপকারী। * বমিভাব কমায়। * অরুচি দূর করে। * গলা খুশ খুশ ভাব কমায়। * ক্রিয়েটিভিটি এবং মেন্টাল ফোকাস বাড়ায়।

পেঁয়াজ : এসেনশিয়াল অয়েল এবং অর্গানিক সালফাইড পেঁয়াজের মূল উপাদান। সালফার জন্যই পেঁয়াজের গন্ধ ও স্বাদ ঝাঁজযুক্ত। তবে চোখের পানি আনার জন্য দায়ী পেঁয়াজে থাকা ভোলাটাইল অয়েল, যা রান্নার পর অনেকটাই কমে যায়।

খাদ্যগুণ :

* কিছু পরিমাণে প্রোটিন, ফ্যাট এবং ফাইবার আছে।

* ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, পটাশিয়াম, আয়রন এবং ক্যারোটিন আছে প্রচুর।

* ১০০ গ্রাম পেঁয়াজ ৫০০ কিলো ক্যালরি এনার্জি দেয়।

উপকারিতা :

* থেঁতো করা কাঁচা পেঁয়াজ কপালে দিলে মাথাব্যথা কমে, চুলে লাগালে চুল পড়া বন্ধ হয়।

* কাঁচা পেঁয়াজ খেলে কোলেস্টেরল কমে।

* হৃদরোগ, থ্রম্বসিস, ব্লাড প্রেসারে কাঁচা পেঁয়াজ উপকারী।

* অ্যানিমিয়া, পাইলসের জন্য উপকারী।

অপকারিতা : যাদের মাইগ্রেনের সমস্যা আছে তারা কাঁচা পেঁয়াজ খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।

ঘাড়ের উপর মাথা থাকলে ব্যথাতো হতেই পারে। আর একটু আধটু ব্যথার জন্য নিজে নিজে ওষুধ খেয়ে ফেলাটাও কোন কাজের কথা না। আগে থেকে কিছুটা সতর্ক হলে মাথা ব্যথার মতো ঝামেলা এড়ানো যায় কিন্তু সহজেই।

মাছের তেল
মাছ খেতে হবে প্রতি বেলায়। পুষ্টির চাহিদা তো মিটবেই মাথা ব্যথা প্রতিরোধেও কার্যকর মাছ। মাছের তেলে থাকে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড। এটিই মূলত মাথা ব্যথার বিরুদ্ধে কাজ করে। মাছের তেলের ক্যাপসুল পাওয়া যায় বাজারে। চিকিৎসকের পরামর্শে নিয়ম করে খেতে পারেন ক্যাপসুলটি।

আপেল
রোজ সকালে ঘুম থেকে উঠেই যারা মাথা ব্যথায় ভোগেন তাদের সমাধান আপেলে। আপেলের বাইরের আস্তরন ফেলে সামান্য লবণ মিশিয়ে খেতে হবে সকালে খালি পেটে। এভাবে চলবে টানা দুই সপ্তাহ।

আদা
আদার উপাদানগুলো থ্রম্বোক্সিনকে কাজে লাগিয়ে শরীরে রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখে। যেটা মাইগ্রেইনের ব্যথা প্রতিরোধে খুব কার্যকর। এ ছাড়া আদায় বমিভাব দূর হয়, দূর হয় মাথা ব্যথা।

ওজন কমাতে অনেকে অনেক কিছু পান করেন বা খান| যেমন: ওজন কমানোর চা, সোনা পাতা, ওজন কমানোর ওষুধ ইত্যাদি| এগুলোর কোনো কার্যকারিতা আছে কিনা তা সন্দেহ আছে| থাকলেও এগুলোর side effect থাকতে পারে| কিন্তু প্রাকৃতিক উপাদান মধু ও লেবু আসলেই যে কার্যকরী, তা পরীক্ষিত এবং সারা বিশ্বে সমাদৃত ও স্বীকৃত | ওজন কমাতে দুটি প্রাকৃতিক উপাদান লেবু ও মধুর পানীয় সম্পর্কে অনেকেই জানেন | ওজন কমানো ছাড়াও লেবু ও মধুর অনেক গুনাগুন আছে|
কেন ওজন কমায় ?
মধুতে যদিও চিনি থাকে, কিন্তু এতে ভিটামিন ও মিনারেল থাকার কারণে এটি সাধারণ চিনির মত ওজন না বাড়িয়ে, কমায়| কারণ সাধারণ চিনি হজম করতে আমাদের শরীর নিজের থেকে ভিটামিন ও মিনারেল খরচ করে, ফলে এই সব পুষ্টি উপাদানের ঘাটতি হয়| এই সব উপাদান ফ্যাট ও cholesterol কমাতে বা ভাঙ্গতে সাহায্য করে| ফলে যখন আমরা বেশি চিনি খাই, তখন অধিক ক্যালরি শরীরে জমা ছাড়াও এইসব পুষ্টি উপাদানের চিনি হজম করতে অতিরিক্ত খরচ হওয়ায় এই সব পুষ্টি উপাদানের ঘাটতি হয়| তাই ওজন বাড়তে পারে| কিন্তু মধুতে এসব উপাদান থাকার ফলে এগুলো হজমে সহায়ক এবং ফ্যাট ও cholesterol কমায় | তাই এই পানীয় ওজন কমায় |তাছাড়া সকালে উঠেই শরীর যদি পানি জাতীয় কিছু পায়, তবে তা হজম শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে| ফলে একই রকম শারীরিক পরিশ্রম করেও আপনার হজম শক্তি বৃদ্ধির কারণে ওজন কমতে পারে|
লেবু-মধু পানীয় বানানোর প্রণালী:
এক গ্লাস হালকা বা কুসুম গরম পানি, অর্ধেক/২ চা চামচ লেবুর রস, এক চা চামচ মধু | গরম পানিতে লেবু ও মধু মিশিয়ে পান করুন লেবু-মধু পানীয়| আপনি চাইলে এর সাথে সবুজ চা (Green Tea) মেশাতে পারেন|


লেবু-মধু পানীয়

লক্ষ্য রাখবেন:

আগে পানি হালকা গরম করে, তারপর তাতে লেবু ও মধু মেশাবেন| মধু কখনই গরম করতে যাবেন না|

যদি ঠান্ডা পানিতে এটি পান করেন, তবে বিপরীত ফল হবে, মানে আপনার ওজন বাড়বে|

লেবু-মধু পানীয়র উপকারিতা:

এই পানীয় শরীর থেকে টক্সিন বের (detoxify) করে| শরীরের ভেতরের নালী গুলোর সমস্ত ময়লা বের করে দেয়
metabolism/হজম শক্তি বাড়ায়, ফলে ওজন কমে
ঠান্ডা লাগলে এই পানীয় কফ বের করতে সাহায্য করে| এবং ঠান্ডা লাগলে, গলা ব্যাথা করলেও এটি উপকারী |
এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়
শরীরের শক্তি বাড়ায়, অলসতা কমায়
কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে


মধুর উপকারিতা:

মধুতে glucose ও fructose আলাদা ভাবে থাকে,কিন্তু চিনিতে তা একসাথে থাকে|fructose তাড়াতাড়ি glucose এর মত শরীরে ক্যালরি হিসাবে জমা হয় না| তাই চিনির মত মধু সহজে ক্যালরি জমা করে না| ফলে অল্প মধু খেলেও ওজন বাড়ার সম্ভাবনা কম|

মধু শরীরকে রিলাক্স করে, মনকে প্রফুল্ল রাখতে সাহায্য করে এবং সহজে ঘুম আনতে সাহায্য করে
মধু একটি প্রাকৃতিক এন্টি বায়োটিক, যা শরীরের সমস্ত ক্ষতিকর bacteria কে মেরে ফেলে infection দূর করে | ফলে শরীরের কাজ করার প্রণালী উন্নত হয়, এবং হেলদি থাকে
মধু হজমে সহায়ক | তাই বেশি খাবার খাওয়ার পরে অল্প মধু খেতে পারেন
মধু ফ্যাট কমায়, ফলে ওজন কমে
মধু natural sweetener| তাই মধু সহজে হজম হয়|
চোখের জন্য ভালো
গলার স্বর সুন্দর করে
শরীরের ক্ষত দ্রুত সারায়
ulcer সারাতে সাহায্য করে

বিভিন্ন রকম রোগ সারায়
নালী গুলো পরিষ্কার করে
ঠান্ডা লাগলে, জ্বর, গলা ব্যাথায় ভালো ওষুধ হিসাবে কাজ করে
মধু Anti-oxidant| ত্বকের রং ও ত্বক সুন্দর করে| ত্বকের ভাজ পড়া ও বুড়িয়ে যাওয়া রোধ করে|
বুদ্ধিবৃত্তি বাড়ায়
শরীরের সামগ্রিক শক্তি বাড়ায় ও তারুণ্য বাড়ায় |

লেবুর উপকারিতা:

লেবুতে আছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি, যা antiseptic ও ঠান্ডা লাগা প্রতিরোধ করে
এছাড়া লেবুতে থাকে Calcium, Potassium, Phosphorus, Magnesium , যার কারণে হাঁড়, ও দাঁত শক্ত হয়
লেবুর এই উপাদান গুলো টনসিল ও urine infection প্রতিরোধ করে
এছাড়া লেবুর ভিটামিন সি ক্যান্সারের সেল গঠন প্রতিরোধ করে
লেবু বুক জ্বালা, ulcer সারাতে সাহায্য করে
Arthritis এর রোগীদের জন্য ভালো |কারণ লেবু diuretic |

লেবু শরীরের ক্ষতিকর bacteria গুলোকে ধবসংশ করে
লেবু antioxidant ও anti-aging
তাই ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধির পাশাপাশি ত্বক পরিষ্কার রাখে, Acne দূর করে| ত্বকের বুড়িয়ে যাওয়া রোধ করে| Black heads ও ত্বকের ভাজ পড়া কমায়
লেবু ওজন কমাতে সাহায্য করে
লেবু হজমে সহায়ক ও হজমের সমস্যা দূর করে
কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে
শরীরের ভিতরের toxin দূর করে, অন্ত্র নালী, Liver ও পুরা শরীরকে পরিষ্কার রাখে
পেট ফুলা (bloating) ও flatulence এর সমস্যা কমায়
রক্ত পরিশোধন করে
ঠান্ডা লাগলে, জ্বর, গলা ব্যাথায় ভালো ওষুধ হিসাবে কাজ করে|
শ্বাস কষ্ট ,হাপানি হলে ভালো কাজ করে|
শ্বাস নালীর ও গলার infection সারাতে সাহায্য করে

কখন খাবেন?

সাধারণত সকালে উঠেই প্রথম পানীয় হিসাবে খালি পেটে এটি খাওয়া হয়| এর কিছুক্ষণ পরে সকালের নাস্তা খেতে পারেন|
সাবধানতা :

যাদের gastric এর সমস্যা আছে তারা অবশ্যই এটি খালি পেটে খাবেন না | কারণ লেবু acidic| তাই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে এটি খাবেন|
তাছাড়া লেবুর acid দাঁতের enamel এর জন্য ক্ষতিকর, তাই এই পানীয় খাবার সাথে সাথে কুলি করবেন, অথবা পানি খাবেন|

একটা কথা মনে রাখবেন, ওজন কমানোর জন্য এই পানীয় শুধুই সহায়ক মাত্র|
ফাহিদা আক্তার , সিদ্ধার্থ মজুমদার, ফিটনেস বাংলাদেশ

1 comments:

  • June 4, 2013 at 8:37 PM
    Anonymous :

    This is really a dodging wherever diminutive but fast loans of this pecuniary aid even a bad person has a unsusceptibility to take this cash early without much ambitious procedures.
    payday loan ukRight at the time of
    crisis you are braced with depleted fund as it is not take much time to get dressed.

    To deal with any unexpected expenses, this plan of action for the citizenry be
    in UK. And the rate of these loans, i. You are allowed entree to the change derivative instrument that enables you in repaying the
    the applicants to be free from pecuniary occasion. In fact, paid MCA providers themselves want to be sensed as normally need no commendation draft or fiscal documents.

Post a Comment