Friday, October 28, 2011

রাজেন্দ্রবাবুর জমিদারবাড়ি, সুনামগঞ্জ, সিলেট

0 comments
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার পাইলগাঁও ইউনিয়নের অন্তর্ভূক্ত 'পাইলগাঁও' গ্রাম। স্থানীয় লোকমুখে শোনা বাবুর বাড়ির সংক্ষিপ্ত ইতিহাস থেকে জানা যায় এই বাড়িটির বয়স আনুমানিক ২০০ বছরেরও বেশি। তৎকালীন প্রতাপশালী জমিদার ব্রজেন্দ্র নারায়ণ চৌধুরী এ বাড়িটি নির্মাণ করেছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে বাড়িটি '’রাজেন্দ্রবাবুর বাড়ি’ নামে'ই পরিচিতি লাভ করে এবং সংক্ষিপ্তভাবে '’বাবুর বাড়ি’' নামেই এখন এটি স্থানীয়দের মাঝে ব্যাপক পরিচিত।













বৃহত্তর সিলেট বিভাগের হলদিপুর, পাইলগাঁও, জগন্নাথপুর এবং বানিয়াচং এলাকা নিয়ে রাজেন্দ্রবাবুর বিশাল জমিদারী ছিল। এই বাড়ি থেকেই তিনি জমিদারী পরিচালনা করতেন। মোট বাড়ির সংখ্যা এখানে তিনটি। প্রথমটি বৈঠকখানা, তারপরেই কাচারীঘর এবং একদম ভিতরে অন্দরমহল। অন্দরমহলের পাশেই একটি জেলখানা রয়েছে। পুকুর রয়েছে দু’টি। একটি বৈঠকখানার বড়বাড়িটির সামনেই। আরেকটি ভিতরে অন্দরমহলের পিছনদিকে। অন্দরমহলের পাশেই রয়েছে রান্না করার জন্যে সুবিশাল এক রান্নাঘর। বৈঠকখানার বড়বাড়িটির সামনে রয়েছে একটি মন্দির। অযত্ন আর অবহেলায় মন্দিরটি ঘন গাছপালায় ঢেকে গিয়েছে। এখানে এখন বড় বড় সাপ এবং অন্যান্য সরীসৃপের বসবাস।

লোকমুখে শোনা যায়, রাজেন্দ্রবাবুর একটি মাত্র মেয়ে ছিল যিনি অজানা রোগে ভুগে মারা যান। তারপর দেশবিভাগের সময় বাবু এই জমিদারী ছেড়ে দিয়ে একেবারের জন্যে ভারতে চলে যান। বর্তমানে সিলেটপ্রবাসী জনাব আজমল হোসেন এই বাড়ি এবং বাড়ি সংলগ্ন জমি-জমা সরকার থেকে লীজ নিয়েছেন। অন্দরমহলের বাড়িটিতে বর্তমানে তিনটি পরিবার বাস করছে যাদের নিজস্ব কোন বাড়িঘর নেই।
পাইলগাঁও গ্রামে জমিদার রাজেন্দ্রবাবু '’পাইলগাঁও ব্রজনাথ উচ্চবিদ্যালয়'’ নামে নিজের নামে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করেছেন। শোনা যায়, তাঁর স্ত্রী রাণীর নামে রাণীগঞ্জ বাজারের নামকরণ হয়েছে। বর্ষায় হাওড় এ অঞ্চলে চলাচলের জন্য তাঁর নিজস্ব পানশী নৌকা ছিল। আর শুকনার সময় তিনি ঘোড়ার গাড়ি ব্যবহার করতেন।
কিভাবে বাবুর বাড়িতে যাওয়া যাবে?
ঢাকা থেকে গ্রীনলাইনের এসি বাসে রাত সোয়া বারোটায় উঠলে ভোর ৬ টায় সিলেটের হুমায়ূনরশিদ চত্ত্বরে নামিয়ে দেবে। সিলেটের কীন ব্রিজের (পুলের মুখ) ওপার থেকে জগন্নাথপুরগামী সিএনজিতে ৫ জনের শেয়ারে জনপ্রতি ৮০ টাকা করে সরাসরি সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার পৌরপয়েন্টে পৌঁছতে প্রায় ২ ঘন্টা লাগবে। আর রিজার্ভ সিএনজি ৪০০ টাকার কমে যাবেনা। জগন্নাথপুর বাসকাউন্টার থেকেও জনপ্রতি ৪৫ টাকা করে জগন্নাথপুর উপজেলায় যাওয়া যায়। সেক্ষেত্রে প্রায় আড়াইঘন্টা সময় লাগবে। জগন্নাথপুর পৌঁছানোর পর রিক্সাযোগে পৌরপয়েন্টে পৌঁছাতে হবে।

পৌর পয়েন্ট থেকে রানীগঞ্জের রাস্তায় রিজার্ভ (১২৫ টাকা) বা শেয়ার সিএনজিতে (২০ টাকা জনপ্রতি) হাবিবপুর ফেরিঘাট পার হয়ে শিবগঞ্জ বাজারে পৌঁছাতে প্রায় ৪০ মিনিট লাগবে। সেখান থেকে ডিঙ্গি নৌকায় ইটাখোলা নদীতে ঘন্টাখানেক যাবার পর একটা ঘাটে মাঝি নামিয়ে দেবে যেখান থেকে আরও প্রায় ৪০ মিনিট পথ হেঁটে তারপর পাইলগাঁও গ্রামে পৌঁছাতে হবে। ফেরার সময়ও একই রাস্তা। হাতের ডানপাশে পড়বে কুশিয়ারা নদী। তবে এবার ঘাটে ডিঙ্গি নৌকা না পাওয়া গেলে প্রায় একঘন্টার মতো হেঁটে শিবগঞ্জ বাজারে আসতে হবে। সেখান থেকে শেয়ার অথবা রিজার্ভ সিএনজিতে জগন্নাথপুর।

লিখেছেন: পয়গম্বর

0 comments:

Post a Comment